করোনায় মৃত্যু ঠেকাতে চিকিৎসা বিজ্ঞানের নতুন আবিষ্কার

মহামারি করোনায় মৃত্যু ঠেকাতে গবেষকরা নতুন অ্যান্টিবডির সন্ধান পেয়েছেন যেটি স্যালাইনের মাধ্যমে  মানব দেহের শিরায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয় যা ভাইরাসকে নির্মূল করতে সক্ষম হবে।ব্যয়বহুল এই চিকিৎসায় আক্রান্ত ব্যক্তির সুস্থ হতে খরচ পড়ে ১,০০০ থেকে ২,০০০ ডলার।

কভিডে মুমুর্ষূ  রোগীদের মধ্যে প্রতি তিনজনের একজন এতে সেরে উঠেছে। এই চিকিৎসা দিয়ে করোনায় আক্রান্ত প্রতি ১০০ জন সাধারণ রোগীর মধ্যে ছয় জনের জীবন রক্ষা করা সম্ভব হবে বলে বিশেষজ্ঞরা হিসেব করে দেখেছেন। তবে যেসব রোগীর দেহে ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার মতো যথেষ্ট অ্যান্টিবডি তৈরি হয় না শুধু তাদেরই এই চিকিৎসা দেওয়া হয়।এই চিকিৎসার নাম মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি ট্রিটমেন্ট। এটি উদ্ভাবন করেছে রিজেনারন নামে একটি প্রতিষ্ঠান।

অ্যান্টিবডি চিকিৎসা আসলে কতটা কার্যকর হবে তা নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা ছিল। কারণ কোন কোন0 পরীক্ষায় দেখা গেছে যে এটা খুব একটা সুফল বয়ে আনে না।ব্রিটেনের বিভিন্ন হাসপাতালের প্রায় ১০ হাজার করোনা রোগীর ওপর এই চিকিৎসার পরীক্ষা চালানো হয়।হাসপাতালের ট্রায়ালে প্রদাহ-বিরোধী স্টেরয়েড ওষুধ ডেক্সামাথাসোনের পাশাপাশি রোগীদের ওপর নতুন এই চিকিৎসা প্রয়োগ করা হয়।নতুন চিকিৎসার রিকভারি ট্রায়ালে ল্যাবরেটরিতে তৈরি দুটি সুনির্দিষ্ট অ্যান্টিবডির মিশ্রণ রোগীর দেহে ঢোকানো হয় যেগুলো করোনা ভাইরাসের কোষে আটক যায়।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.