মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে করোনার কারণে শিক্ষাব্যবস্থা অবনতির দিকে। রাজ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা হবে কি না, এ বিষয়ে রাজ্য সরকার ছয় সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করেছিল। বিশেষজ্ঞ কমিটির পক্ষ থেকে গতকাল শুক্রবার শিক্ষা দপ্তরে দেওয়া প্রতিবেদনে পরীক্ষা বাতিলের সুপারিশ করা হয়।

করোনার কারণে শিক্ষার্থীদের স্কুলে গিয়ে পরীক্ষা দেওয়া বাস্তবসম্মত হবে না। তাই পরীক্ষা না হওয়ার পক্ষে সুপারিশ করা হয়েছে। এখন এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে পশ্চিমবঙ্গ সরকারই।বিশেষজ্ঞ কমিটি পরীক্ষা বাতিলের সুপারিশ করলেও এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। তবে ইতিমধ্যে ইংরেজি মাধ্যমের দিল্লির কেন্দ্রীয় বোর্ড সিবিএসই এবং সিআইএসসিই বোর্ড দ্বাদশ শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষা বাতিল করে দিয়েছে।

বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে হোম অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে মূল্যায়ন হতে পারে। এর সঙ্গে থাকবে ল্যাবরেটরি–ভিত্তিক বিষয়ে ৩০ নম্বর এবং নন–ল্যাবরেটরি বিষয়ের জন্য ২০ নম্বরের প্রজেক্টে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রাপ্ত নম্বর। কমিটি বলছে, পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়নের ক্ষেত্রে ওই সব নম্বরকে গুরুত্ব দেওয়া যেতে পারে। আর মাধ্যমিকের ক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীদের নবম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা অথবা ষাণ্মাসিক ও বার্ষিক পরীক্ষার নম্বর যোগ করে গড় নম্বর দেওয়া যেতে পারে।

মঙ্গলবার এই পরীক্ষা নিয়ে একটি উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হয়েছিল। সেখানেই করোনা পরিস্থিতি এবং পরবর্তী অবস্থা নিয়ে বৈঠক হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুসহ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বোর্ডের সভাপতি ও অন্যান্য শীর্ষ কর্মকর্তা। সেদিনই এই দুই পরীক্ষা নিয়ে ছয় সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকে বলা হয়, এই বিশেষজ্ঞ কমিটি মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়ে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বিস্তারিত প্রতিবেদন দেবে।

 

 

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.