হত্যা করা হয় চড়ুই পাখি

১৯৮৩ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত চীনে কুকুর পালা নিষিদ্ধ ছিল। জলাতঙ্ক রোগে প্রায় ১০ হাজার মানুষ মারা যাওয়ায় চীন ওই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তার আগেও কিন্তু চীনে কুকুর পালা নিষিদ্ধ হয়েছিল।মাও সে-তুংয়ের শাসনামলেও কুকুর পালা নিষিদ্ধ ছিল। মাও সরকার মনে করত, কুকুর পালা বুর্জোয়া বিলাসিতা; একে সমাজতান্ত্রিক সরকার প্রশ্রয় দিতে পারে না।

মাও ক্ষমতায় এসে উদ্যোগ নেন, তার একটি চীনা নববর্ষ উদ্‌যাপন বন্ধ করা। মাও সরকার ধর্মীয় ও আধ্যাত্মিকতার অনুষঙ্গের দায়ে নববর্ষ উৎসব উদ্‌যাপন নিষিদ্ধ করে। নিষিদ্ধ করা হয় গলফ খেলা। এই খেলাকে মাও ধনীদের খেলা বলে মনে করতেন।

মাও সরকারের কোপানলে পড়েছিল সামান্য চড়ুই পাখিও। মাও বলেন, ইঁদুর, মশা, মাছি আর চড়ুই পাখি হলো মানুষের শত্রু। এসব মেরে ফেলতে হবে। মাওয়ের কথায় চীনের সবাই ইঁদুর, মশা, মাছি আর চড়ুই পাখি মেরে ফেলতে শুরু করল। সেনাসদস্য থেকে সাধারণ মানুষ, সবাই অংশ নিল এতে।

কিন্তু চড়ুই পাখি কেন মারতে হবে? মাও বললেন, চড়ুই পাখি খেতের শস্য খেয়ে ফেলে। তাই চড়ুই পাখিও মেরে ফেলতে হবে। নির্দেশ তামিল হলো; মারা হলো লাখ লাখ চড়ুই। তবে হিতে বিপরীত হলো। ফল পাওয়া গেল পরের বছরই। চড়ুই কমে যাওয়ায় বেড়ে গেল শস্য ধ্বংসকারী কীটের উপদ্রব।

১৯৬৫ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত সব ধরনের ধর্মীয় কর্মকাণ্ড ও সংগঠন চীনে নিষিদ্ধ ছিল। পরবর্তী সময়ে ধর্ম পালনের অধিকার ফিরে এলেও নিষিদ্ধের রেশ পুরোপুরি যায়নি। এখনো কোনো ধর্মবিশ্বাসী ব্যক্তি চীনা কমিউনিস্ট পার্টিতে যোগ দিতে পারে না। জনপ্রিয় সিদ্ধান্তও কম নেননি মাও।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.