গাঁজার খামারে বিটকয়েন

যুক্তরাজ্যের স্যান্ডওয়েলের গ্রেট ব্রিজ ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেটে অভিজান চালায় পুলিশ। পুলিশের ধারণা ছিলো সেখানে গাঁজা চাষ করা হয়, কিন্তু সেখানে জানতে পারে ভিন্ন কিছু। সেখানে প্রায় ১০০টি কম্পিউটার ইউনিট  দেখতে পায়। গাঁজার গাছের পরিবর্তে সারি সারি কম্পিউটার যন্ত্রাংশ পাওয়া যায়।

ভবনটিতে দিনব্যাপী অনেক মানুষের যাতায়াতের খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। সেখানে ড্রোন পাঠালে ভবনটি থেকে বেশ উত্তাপ ছড়ানোর তথ্য পায় তারা।পুলিশ বলছে, ক্রিপ্টোকারেন্সি বা ডিজিটাল মুদ্রা তৈরির কারখানাটি হাজারো ব্রিটিশ পাউন্ডের বিদ্যুৎ চুরি করেছে। ওই ভবনের বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থা ওয়েস্টার্ন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন পরে জানতে পেরেছে যে সেখানে অবৈধভাবে বিদ্যুতের সংযোগ নেওয়া হয়েছিল।

কোনো কেন্দ্রীয় আর্থিক ব্যবস্থা নেই। ব্লকচেইন নামের ডেটাবেইসে সব ধরনের লেনদেন লিপিবদ্ধ হয়। অ্যালগোরিদমের সমাধান দিয়ে বিটকয়েন মিলতে পারে। এ প্রক্রিয়াকে বলা হয় মাইনিং। অনেক কম্পিউটার যন্ত্রাংশ একসঙ্গে চলার জন্য এতে প্রচুর বিদ্যুতের প্রয়োজন হয়।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.