করোনার সাথে চলবে পড়াশোনা

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর বিভিন্ন নির্দেশনা জারি করেছে। বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। অধিদফতর। লকডাউন শেষ হলেই প্রথমে সপ্তাহভিত্তিক পাঠ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হবে প্রাথমিক শিক্ষকদের। গুগল মিটে ক্লাস্টারভিত্তিক একটি কেন্দ্রে অনলাইন ক্লাস চালু করতে হবে। অনলাইন শিক্ষানির্ভর এই ব্যবস্থার পাশাপাশি শিক্ষার্থীর কাছে শিক্ষকরা পাঠ পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্বও পালন করবেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সময়।

প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের গুগল মিটে ক্লাস করানো হবে। এই অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে পরবর্তীতে দেশের প্রতিটি বিদ্যালয়ের জন্য অনলাইন ব্যবস্থা চালু করা হবে। যেসব এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্ক রয়েছে এমন প্রতিটি বিদ্যালয়কে ওয়াইফাইয়ের আওতায় নেওয়া হবে। জরুরি প্রয়োজনে অনলাইন স্কুল ব্যবস্থা পরিচালিত হবে। গুগল মিটে ক্লাস নেওয়ার জন্য শিক্ষকদের কেন্দ্রীয়ভাবে গাইডলাইন ও নির্ধারিত কনটেন্ট সরবরাহ করা হবে। শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে গুগল মিটের মাধ্যমে। এছাড়া সরাসরি শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সমস্যার বিষয়ে শিক্ষক জেনে নিয়ে তা সমাধান করবেন।

চলতি বছরের প্রাথমিক শিক্ষা পরিচালনার সার্বিক বিষয়ে নির্দেশনা জারি করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা অ্যাকাডেমি   অন্তর্বর্তীকালীন পাঠ পরিকল্পনাও তৈরি করে। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ৩০ এপ্রিল ওই সার্বিক নির্দেশনা দেওয়া হয়।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতিটি ক্লাস্টারে একটি কেন্দ্র করে গুগল মিটের মাধ্যমে এই ক্লাস চালু করতে হবে। প্রতিটি ক্লাস্টারে ৩০ জন করে শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে। যদি ৩০ জনের বেশি শিক্ষার্থী অংশ নেয় তাহলে আরও একটি অনলাইন  গুগল মিট  ক্লাস চালু করতে হবে। এসব ক্লাসে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবে।  প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের সার্বিক নির্দেশনায় বলা হয়, প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অধিকাংশ শিখন ফল অর্জনের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে দুই সপ্তাহের কর্মপরিকল্পনাসহ ওয়ার্ক সিট ও অ্যাক্টিভিটি সিট (পরীক্ষামূলক বাড়ির কাজ) প্রণয়ন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.