গোবর চিকিৎসায় বিশ্বাসি ভারতীয়রা

পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য গুজরাটের অনেক বাসিন্দাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে এমন আশায় গোশালায় গিয়ে গোবর এবং গরুর মূত্র শরীরে মাখছে। অনেকেরই বিশ্বাস এতে তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে কিংবা করোনা সেরে যাবে।এমন বিশ্বাসে এটি ব্যবহার করার বিরুদ্ধে সতর্ক করেছেন ভারতীয় চিকিৎসকরা। তারা বলছেন, এর কার্যকারিতার কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই আর এতে অন্য রোগ ছড়ানোর ঝুঁকি রয়েছে।

হিন্দু ধর্মে গরু পবিত্রতার প্রতীক। বহু শতাব্দী ধরে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা নিজেদের বাড়িঘর পরিষ্কার করতে গোবর ব্যবহার করে আসছে। তাদের বিশ্বাস এতে রোগ নিরাময়ের ক্ষমতা রয়েছে।করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ভারত। এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৬৬ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত এবং ২ লাখ ৪৬ হাজার ১১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তবে ভারতের বিভিন্ন স্থানের চিকিৎসক ও বিজ্ঞানীরা বারবারই এই ধরনের চর্চার বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে আসছেন। তারা বলছেন, এই ধরনের বিকল্প চিকিৎসায় নিরাপত্তার ভুয়া বোধ তৈরি করতে পারে আর স্বাস্থ্য জটিলতা বাড়াতে পারে।ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট ডা. জেএ জয়লাল বলেন, ‘গোবর কিং গোমূত্র করোনার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই, এটা সম্পূর্ণ বিশ্বাসের ওপর ভর করে চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.