আইপিএল খেলবেন টেন্ডুলকারের ছেলে

ভারতের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট সৈয়দ মুশতাক আলী ট্রফিতে হরিয়ানার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে গতকাল মুম্বাইয়ের জার্সিতে অভিষেক হয় অর্জুন টেন্ডুলকারের। ঘরোয়া ক্রিকেটে অভিষেক হওয়ায় এখন ২০২১ আইপিএলে খেলার যোগ্যও হয়েছেন তিনি। এবার আইপিএল নিলামে থাকবে তাঁর নাম। কোন দল কিনবে টেন্ডুলকারের ছেলেকে?

বয়স হয়ে গেছে ২১ বছর। বাবার মতো ব্যাটিং নয়, বোলিংকেই বেছে নিয়েছেন অর্জুন। বাঁহাতি পেসার তিনি। খুব একটা যে ভালো কিছু এখনো করে উঠতে পারেননি, সেটি তো এত দিনেও পারফরম্যান্সের কারণে শিরোনামে না আসতে পারাই বলে দেয়। এত দিনে এসে মুম্বাইয়ের জার্সিতে অভিষেক হলো তাঁর!

অভিষেকও মনে রাখার মতো হয়নি। মুম্বাইয়ের বান্দ্রা কুরলা কমপ্লেক্সে হরিয়ানার বিপক্ষে পাওয়ার প্লেতে বোলিং দিয়ে শুরু করেছিলেন, সেখানে চৈতন্য বিষ্ণয়ের উইকেট পেয়েছেন। কিন্তু এরপর বেধড়ক মার খেয়েছেন। এমনই যে মুম্বাইয়ের বোলারদের মধ্যে কাল সবচেয়ে বেশি খরুচে ছিলেন অর্জুন! ৩ ওভারে ৩৪ রানে উইকেট ওই একটি।

২০১৮ সালে ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দলে ডাক পেয়েছিলেন অর্জুন। কিন্তু ভালো করতে পারেননি। মুম্বাইয়ের অনূর্ধ্ব-১৪, অনূর্ধ্ব-১৬ ও অনূর্ধ্ব-১৯ দলেও খেলেছিলেন। এরপর ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেটে কোনো সিনিয়র দলে সুযোগ মেলেনি। এত দিন ইংল্যান্ডের মাটিতে ক্লাব ক্রিকেট খেলেছেন। মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব ইয়াং ক্রিকেটার্সের হয়ে খেলেছেন সেকেন্ড ইলেভেন চ্যাম্পিয়নশিপে, যেটি আসলে ইংল্যান্ডের ফার্স্ট ক্লাস স্ট্যাটাস পাওয়া কাউন্টি ক্লাবগুলোর রিজার্ভ দলের টুর্নামেন্ট। খেলেছেন ইলিং ক্রিকেট ক্লাবের হয়েও।

ক্রিকেটে বিখ্যাত বাবার সন্তানদের ভালো করতে দেখা গেছে কমই। অর্জুনও কি সেই পথেই এগোচ্ছেন? শঙ্কাটা আছেই। অর্জুন অবশ্য বাবার পরিচয় ছাপিয়ে নিজের আলাদা নাম করতে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বলে জানাচ্ছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। তাঁকে মাঝেমধ্যে ভারতের জাতীয় দলের নেটে বোলিং করতে দেখা যায়, মাঝেমধ্যে খেলেন রাজ্যের মধ্যে বিভিন্ন দলের ম্যাচেও। সেদিক থেকে গতকাল বড় একটা ধাপই পেরিয়েছেন অর্জুন।

যদিও তাঁর পারফরম্যান্স নয়, বাবার নামের কারণেই অর্জুনের অভিষেক আসছে খবরের শিরোনামে। তা যা-ই হোক, আপাতত এই অভিষেকে আইপিএলে খেলার দরজা তো খুলবে বলেই মনে করা হচ্ছে। কিন্তু দরজার ওপাশে কি কেউ আছেন অর্জুনের অপেক্ষায়? কোনো দল নেবে তাঁকে?

ভারতীয় পত্রিকা টাইমস নাউ নিউজ লিখেছে, পারফরম্যান্সের বিচারে অর্জুন যে এই সময়ে ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেক তরুণ খেলোয়াড়ের চেয়ে পিছিয়ে আছেন, সেটি নিয়ে কোনো সংশয় নেই। কিন্তু বাঁহাতি পেসার হওয়ায় অনেক ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছে তাঁকে নেওয়াটা লোভনীয় বিবেচিত হতে পারে।

তারওপর ২০২২ সাল থেকে আইপিএল আট দলের বদলে দশ দলের হতে যাচ্ছে। আরও বেশি দল মানে আরও বেশি খেলোয়াড়ের সুযোগ। সে ক্ষেত্রে এ বছরে কোনো দল তাঁকে না নিলেও আগামী বছর আরও বড় সুযোগ আসবে অর্জুনের সামনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *