জাপান অলিম্পিকে দর্শক থাকবে

টোকিও শহর ও আয়োজক কমিটি যেকোনোভাবেই হোক অলিম্পিক আয়োজন করতে চাইছে। আর ৩২ দিন বাকি অলিম্পিকের। এর আগেই একটি ইতিবাচক খবর দিচ্ছে আয়োজক কমিটি। স্বাগতিক জাপানের নাগরিকদের অলিম্পিক দেখতে দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে কি না, এ নিয়েও প্রশ্ন উঠছিল। সব শঙ্কা উড়িয়ে ২০২০ টোকিও অলিম্পিকে দর্শক ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি ভেন্যুর ধারণক্ষমতার অর্ধেক দর্শক ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

তবে বড় ভেন্যুর ক্ষেত্রে ধারণক্ষমতা যতই হোক না কেন, সর্বোচ্চ ১০ হাজার দর্শক ঢুকতে পারবেন। বিদেশি দর্শক যে এবারের অলিম্পিকে দেখা যাবে না, সেটা আগেই জানানো হয়েছিল।আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি, টোকিও অলিম্পিক কমিটি, আন্তর্জাতিক প্যারালিম্পিক কমিটি, টোকিও মেট্রোপলিটন সরকার ও জাপান সরকার মিলে আজ এক বৈঠকে বসেছিল। সে বৈঠকেই সব ভেন্যুতে ৫০ শতাংশ দর্শক ও সর্বোচ্চ ১০ হাজার মানুষ ঢোকার অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আগামী ২৩ জুলাই শুরু হয়ে ৮ আগস্ট শেষ হওয়ার কথা এবারের অলিম্পিক। সে সূচিতে কোনো নড়চড় হচ্ছে না। স্কুল পর্যবেক্ষণ প্রোগ্রামের অধীন শিক্ষার্থী ও তাদের তত্ত্বাবধায়কেরা নির্ধারিত দর্শকসংখ্যার গণনার বাইরে থাকবেন। কারণ, তাঁরা দর্শক হিসেবে গণ্য হবেন না। ভেন্যুতে দর্শক থাকা বা দর্শকসংখ্যা সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত করোনার পরিবর্তিত পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে।সব ভেন্যুতে সব দর্শককে মাস্ক পরতে হবে। চিৎকার করা বা জোরে কথা বলা নিষিদ্ধ। যেকোনোভাবেই হোক ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে। বিধি মেনে ভেন্যু ত্যাগ করতে হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *