আবারো হিংস্রতায় মেতে উঠেছে ইসরাইল

ফিলিস্তিনে গুপ্তহত্যা শুরু করেছে ইসরাইল। বিভিন্ন ভাবে গোপনে হত্যা করে যাচ্ছে ইসরাইল রা। শরণার্থীশিবিরে ২৪ বছরের আহমেদ ফাহাদকে গুলি করে হত্যা করে। তার মা জানান,” নির্মমভাবে আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। হাসিখুশি ছেলেটি ছিল খুবই বন্ধুবৎসল।’ আল বিরেহ মিউনিপ্যালিটিতে কাজ করতেন ফাহাদ। কয়েক সপ্তাহ পরেই তাঁর বিয়ের কথা ছিল।” ইসরায়েলি গুপ্তচরেরা প্রথমে ফাহাদকে আটক করে। পরে তাকে হত্যা করা হয়।

এক প্রতিবেদনে জানা যায় ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে তাঁকে বেশ কয়েকবার গুলি করা হয়। ফিলিস্তিনের রামাল্লার কাছে উম আল শরায়েত এলাকায় একটি রাস্তায় গত মঙ্গলবার তাঁর মরদেহ ফেলে যাওয়া হয়। রামাল্লা হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, ফাহাদকে খুব কাছ থেকে কয়েকটি গুলি করা হয়েছে।

এই হত্যা কাণ্ড বিষয়ে ইসরায়েলের অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তা শিন বেত ফোন করে ফাহাদের পরিবারের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। তাঁদের ভাষ্য, ফাহাদকে হত্যা করার পরিকল্পনা তাঁদের ছিল না। সন্ত্রাসী কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে ফাহাদের ভাই ও চাচার বিরুদ্ধে তাঁরা ব্যবস্থা নিতে চেয়েছিলেন।

ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে ফিলিস্তিনিদের হত্যার অনেক ঘটনার তথ্য তাঁর মানবাধিকার সংস্থা আল-হকের কাছে রয়েছে। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থাকে পরিসংখ্যান ও নথিপত্র দিয়ে জানানো হয়েছে, এ ধরনের হত্যাকাণ্ডের ৯৫ শতাংশ অপ্রয়োজনে হয়ে থাকে। মুসতা’রিবিনের কর্মকর্তারা রাস্তা থেকে ফিলিস্তিনিদের ধরে নিয়ে যাচ্ছে। এমনকি শিশুরাও বাদ যাচ্ছে না। যেভাবে ফিলিস্তিনিদের আটক করা হচ্ছে, তা অনেকটা অপহরণের মতো।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *