ছেলেদের কাছ থেকে জমি ফেরত চান মা

কয়েকদিন আগে পত্রিকায় প্রকাশ হয় ‘ছেলেদের জমি লিখে দিয়ে রাস্তায় ঘুরছেন মা’ এই শিরোনামে। সংবাদ প্রকাশের পরে বিষয়টি নজরে আসে প্রশাসনের। গত সোমবার রাতে সেই মায়ের বড় ছেলে মোজাম্মেলকে আটক করে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর থানা পুলিশ।

সংবাদটি প্রকাশের পরে হরিপুর থানার ওসি, ভাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ স্থানীয়রা আলোচনায় বসেন। মায়ের জমি লিখে নেওয়া দুই ছেলে মোজাম্মেল ও মফিজুল ৪ বিঘা করে ৮ বিঘা জমি মায়ের ভরণপোষণের জন্য ছোট ভাই হাফিজুলকে দিতে রাজি হন। তবে মায়ের মৃত্যুর পর আবার সেই জমি ফিরিয়ে নেবেন দুই ছেলে। এ ছাড়া মোজাম্মেল ও মফিজুল তার মাকে প্রতি মাসে ৫০০ করে এক হাজার টাকা দিতে রাজি হন।

উক্ত সিদ্ধান্তের পর বৃদ্ধ মা ছোট ছেলের বাড়িতে ফিরলেও দুই ছেলেকে জমি দিতে রাজি হননি। তার দাবি সব জমি তার নামে লিখে দিতে হবে।

বৃদ্ধা আজেদা খাতুন উপজেলার ভাতুরিয়া ইউনিয়নের মাগুরা গ্রামের মৃত বজির উদ্দীনের স্ত্রী। তার তিন ছেলে মোজাম্মেল, মফিজুল, হাফিজুল ও দুই মেয়ে। ছেলেমেয়েরা সবাই বিবাহিত। কয়েক মাস আগে দুই ছেলে মোজাম্মেল ও মফিজুল মায়ের কাছ থেকে ৭ একর জমি দলিল করে নেন নিজেদের নামে, যার বর্তমান বাজার মূল্য এক কোটি টাকা। এর পর সেই মাকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন তারা।

ভুক্তভোগী আজেদা খাতুন বলেন, প্রথমে মেঝ ছেলে ৪ একর জমি নিজের নামে লিখিয়ে নেয়। পরে বড় ছেলে বলে, আগের দলিল বাতিল করতে হলে আমার নামে দলিল করে দিতে হবে। আগের দলিল বাতিলের জন্য বড় ছেলেকে আরও ৩ একর জমি লিখে দিয়েছি। পরে দেখি উল্টো ঘটনা। ওরা আমাকে ভুল বুঝিয়ে পথে নামিয়েছে। আমি তাদের বিচার চাই। থানায় বসে যেভাবে মীমাংসা করা হয়েছে তাতে আমি মরে গেলে আবার ঝামেলা শুরু হবে। ছোট ছেলে ও দুই মেয়ে অভাব-অনটনে দিন কাটবে, আমি এটা মানি না। এ ছাড়া ছেলেদের দয়া নিয়ে বাঁচতে চাই না। আমার জমি আমার নামে লিখে দিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ বিষয়ে বৃদ্ধার ছেলে মোজাম্মেল ও হাফিজুল বলে, সালিশের মাধ্যমে মায়ের জীবনদশায় ৮ বিঘা জমি দিতে রাজি হয়েছি। এ ছাড়া প্রতি মাসে দুই ভাই মিলে ১ হাজার করে টাকা মাকে দেব।

Are you happy ? Please spread the news

Leave a Reply

Your email address will not be published.