৮ বছর থেকে উপহার আসছে মৃত স্বামীর কাছ থেকে ।

বিগত আট বছর ধরে মৃত স্বামীর কাছ থেকে ভালোবাসা দিবসে ফুল উপহার পান ট্রেসি। ভালোবাসা দিবসেই ট্রেসির জন্মদিন। জন্মদিনের শুভেচ্ছাও থাকে উপহারের সঙ্গে।

২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ–পূর্বাঞ্চলে কেন্টাকি অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দা ট্রেসির স্বামী রিচ কক্স মারা যান । ঠিক এর পরের বছর ২০১৩ সালে ভালোবাসা দিবস ও জন্মদিনে ফুল উপহার পেয়ে চমকে যান ট্রেসি। জানতে পারেন, রিচ নিজের মৃত্যুর পরও স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশের এই অভিনব বন্দোবস্ত করে গেছেন। প্রথমবার উপহার পেয়ে আনন্দ আর বিষাদমাখা অনুভূতি হয়েছিল ট্রেসির। স্বামীর প্রগাঢ় ভালোবাসা আন্দোলিত করেছিল। এরপর থেকে নিয়মের ব্যতিক্রম ঘটেনি। আট বছর ধরে প্রতিটি জন্মদিন আর ভালোবাসা দিবসে মৃত স্বামীর কাছ থেকে একইভাবে উপহার পেয়ে আসছেন।

শুক্রবার সিএনএনকে ট্রেসি বলেন, ‘অনুভূতিটা দুঃখের। কিন্তু একই সঙ্গে আনন্দের। কারণ আমার মনে হয়, রিচ সব সময় আমার সঙ্গে আছে।’প্রতিবছর ফুলের সঙ্গে নতুন চিরকুট থাকে স্বামী রিচের পক্ষ থেকে। এ বছর ভালোবাসা দিবসের চিরকুট ছিল এ রকম, ‘শুভ জন্মদিন ও ভালোবাসা দিবস। ভালোবাসা, রিচ।’২০১৮ সালে পাওয়া চিরকুটটি ছিল এ রকম, ‘ট্রেসি, তুমি আমায় দেখতে পাও না। আমি সব সময় এখানে আছি। আমি তোমাকে ভালোবাসি। ভালোবাসা নিয়ো। রিচ।’২৬ বছরের বিবাহিত জীবন ছিল ট্রেসি আর রিচের। ট্রেসি বলেন, ‘রিচ যত্নশীল, আবেগপ্রবণ মানুষ।’

ট্রেসি বলেন, ‘যখনই আমি ফুল পেতাম, আমি আনন্দে কেঁদে ফেলতাম। এই আনন্দ আমাকে দিতেই রিচ এ রকম ব্যবস্থা করে গেছেন।’ ট্রেসি আরও বলেন, ‘রিচের এই উপহার আমাকে আমাদের একসঙ্গে কাটানো সব সময়ের কথা মনে করিয়ে দেয়।’৫৩ বছর বয়সে গলার ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান রিচ। ট্রেসির বয়স এখন ৬৩ বছর। তিনি কেন্টাকির জর্জটাউনে বসবাস করেন।

ট্রেসির মেয়ে বেথানি সিএনএনকে বলেন, বাবা তাঁকে ও তাঁর তিন ভাইবোনকে এই গোপন পরিকল্পনার কথা জানিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁরা জানেন না, কীভাবে এই উপহার আসে। তবে জানেন, এই উপহার আসা বন্ধ হবে না। বেথানি বলেন, বাবা যখন তাঁকে এই পরিকল্পনার কথা বলেছিলেন, তখন তিনি অবাক হননি। কারণ, বাবা এমনই মানুষ ছিলেন। নারীরা যেমন জীবনসঙ্গীর স্বপ্ন দেখেন, বাবা ছিলেন সে রকমই একজন মানুষ। মা-বাবার সম্পর্ক ছিল সত্যিকারের ভালোবাসার সম্পর্ক।

ট্রেসি বলেন, এখন যদি রিচকে তিনি কেবল একটি কথা বলতে পারেন, তাহলে তিনি সবকিছুর জন্য তাঁকে অনেক অনেক ধন্যবাদ জানাবেন।

Are you happy ? Please spread the news